1. admin@sabujbanglanews.com : সবুজ বাংলা নিউজ : সবুজ বাংলা নিউজ
  2. uttam.birganj14@gmail.com : সবুজ বাংলা নিউজ : সবুজ বাংলা নিউজ
বীরগঞ্জে দেবোত্তর সম্পত্তি নিয়ে হরিলুট কারবার ভূয়া সেবায়ত সেজেছে মোহিনী - সবুজ বাংলা নিউজ
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১০:৫৯ পূর্বাহ্ন

বীরগঞ্জে দেবোত্তর সম্পত্তি নিয়ে হরিলুট কারবার ভূয়া সেবায়ত সেজেছে মোহিনী

বার্ত ডেক্স
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

বিকাশ ঘোষ, বীরগঞ্জ(দিনাজপুর)প্রতিনিধি:

দিনাজপুরের বীরগঞ্জে দেবোত্তর সম্পত্তি নিয়ে হরিলুট কারবার ভূয়া সেবায়ত সেজেছে মোহিনী। উপজেলার ১নং শিবরামপুর ইউনিয়নের অধিকারী পাড়া গ্রামে শ্যাম রায়,ভবানী ঠাকুরানী মন্দিরের ৪২ একর দেবোত্তর সম্পত্তি পাকিস্তান আমল থেকে জোরপূর্বক দখলের পায়তারা চালিয়ে আসছেন এলাকার প্রভাবশালী জনৈক মোহিনী পরিবার। শিবরামপুর মৌজার জেল নং ১৩ খতিয়ান নং- ৩৯ এবং নতুন ১৮৩৩,১৮৩১,১৮৩২ও ১৮৩৪ খতিয়ানের ৪২ একর জমি দেবোত্তরের নামে বৃটিশ আমলে দান করে জীবন দর্শায় মৃত্যুবরণ করেন হেম চন্দ্র অধিকারী। হেম চন্দ্র অধিকারীর মৃত্যুর পর হিরম্বর চন্দ্র অধিকারী ভূয়া সেবায়ত সেজে সমুদায় সম্পত্তি আত্মসাৎ করেছেন।

সরজমিন গিয়ে হিরম্বরের পুত্র মোহিনী সাথে কথা বলে জানা যায়,হেম চন্দ্র আমার আপন জেঠাতো ভাই সেই সূত্রে আমি বৈধ্য সেবায়ত। হেম চন্দ্র অধিকারীর পুত্র ও নাতি কৃষ্ণ চন্দ্র অধিকারীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়,মোহিনী অধিকারী তাদের কোনো রক্তের সম্পর্কে কেউ নয়। অথচ মোহিনী পরিবারের লোকজন উক্ত দেবোত্তর সম্পত্তি জোরপূর্বক দখল করে বিভিন্ন প্রকারের চাষআবাদ করে ভোগদখল করে আসছে। দেবোত্তর সম্পত্তি থেকে আয়ের অংশ থেকে দেবতার মান-মর্যাদা এখন ঠেকেছে প্রায় তলানিতে। বহুকাল আগে বন্ধ হয়ে গিয়েছে একমাত্র অবলম্ব শ্যাম রায় মন্দিরে সেবাও। অথচ, দলিলে লেখা রয়েছে এই সেবা হবে নিয়মিত। দিন বদলিয়েছে কিন্তু কথা কজে মিল নেই বলেই চলে। মোহিনীরা ক্ষমতার অপব্যবহার করে প্রায় ২০ একর জমি বিভিন্ন নামে-বেনামে দিয়ে মোটা অংকের অর্থে হাতিয়ে নিয়েছে। ভূয়া সেবায়ত মোহিনী
অধিকারীর দেবোত্তর সম্পত্তিগুলো দখলদারদের স্বর্গরাজ্য করে রাখলেও শ্যাম রায় ও ভবানী ঠাকুরানী মন্দির দুটি সকলের
গলার কাঁটা হয়ে রয়েছে। দীর্ঘ ৫২ বছর পেরিয়ে গেলেও মন্দিরের কোনোরকম সংস্কার হচ্ছে না। দেবতার নামে অর্থ আত্নসাৎ করে ভূয়া সেবায়ত সেজে বর্তমানে মোহিনী পরিবারের লোকজন দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।
কেন এই হাল? মূল সেবায়েত হেম চন্দ্র অধিকারীর সন্তানেরা রক্ষিত সম্পত্তির রক্ষণাবেক্ষণ থেকে বঞ্চিত রয়েছেন। অভিযুক্ত মোহিনী পরিবারের সকলের বিরুদ্ধে আইনি লড়াই চলছে। এব্যাপারে ১নং শিবরামপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও মোহিনী অধিকারীর ভাগিনা যাদব চন্দ্র অধিকারী জানান, মোহিনী চন্দ্র অধিকারী এবং প্রয়াত সেবায়েত হেম চন্দ্র অধিকারী রক্তের কেউ নয়। তাঁরা জোরপূর্বক দেবোত্তর সম্পত্তিগুলো ভোগদখল করে ভূয়া সেবায়ত সেজে মোটা অংকের অর্থ আত্মসাৎ করছেন।

আরও সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।