1. admin@sabujbanglanews.com : সবুজ বাংলা নিউজ : সবুজ বাংলা নিউজ
  2. uttam.birganj14@gmail.com : সবুজ বাংলা নিউজ : সবুজ বাংলা নিউজ
বীরগঞ্জে সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা - সবুজ বাংলা নিউজ
মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৪৪ অপরাহ্ন

বীরগঞ্জে সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা

বার্ত ডেক্স
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ১ জুলাই, ২০২৩

বিকাশ ঘোষ, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:

দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলা আদিবাসী সমাজ উন্নয়ন সমিতির আয়োজনে সাঁওতাল বিদ্রোহের মহানায়ক সিধু ও কানুর স্মরণে ১৬৮ তম সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস পালন করা হয়েছে।

দিবসটি উপলক্ষে শুক্রবার (৩০ জুন) বিকেলে দিনাজপুরে বীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আমিনুল ইসলাম।
বীরগঞ্জ আদিবাসী সমাজ উন্নয়ন সমিতির সভাপতি শীতল মার্ডীর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বীরগঞ্জ সহকারী কমিশনার (ভূমি) রাজ কুমার বিশ্বাস, আদিবাসী সমাজ উন্নয়ন সমিতির প্রধান উপদেষ্টা মোর্শেল মার্ডী, সহ-সভাপতি এডওয়্যার্ড হেমরম, সম্পাদক বিশ্বনাথ মুর্মু, সদস্য কমলা কান্ত হাসদা, ৪নং পাল্টাপুর ইউনিয়ন পরিষদ আদিবাসী সমাজ উন্নয়ন সমিতির সদস্য খ্রিষ্টফার মার্ডী, ১১নং মরিচা ইউনিয়ন পরিষদ আদিবাসী সমাজ উন্নয়ন সমিতির সদস্য বিনদ মুর্মু।
প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে আমিনুল ইসলাম বলেন, ৩০ জুন সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস। এ বছর সাঁওতাল বিদ্রোহের ১৬৭ বছর পূর্ণ হচ্ছে। ইংরেজদের বিরুদ্ধে অধিকার ফিরিয়ে আনার সংগ্রামের নাম সাঁওতাল বিদ্রোহ, আর এ দিনকে স্মরণ করে পালিত হয় এ দিবস। ১৮৫৭ সালে সিপাহি বিদ্রোহের ঠিক ২ বছর আগে ১৮৫৫ তে ঘটে যাওয়া এ বিদ্রোহই ছিল ইংরেজদের দেশ থেকে বহিষ্কার করার প্রথম আন্দোলন। ১৬৭ বছর আগে ১৮৫৫ সালের ৩০ জুন সাঁওতাল স¤প্রদায়ের চার ভাই সিদু-কানহু-চান্দ ও ভাইরোর নেতৃত্বে তারা ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক যুদ্ধ ঘোষণা করেছিল। এ যুদ্ধের উদ্দেশ্য ছিল ব্রিটিশ সৈন্য ও তাদের দোসর অসৎ ব্যবসায়ী, মুনাফাখোর ও মহাজনদের অত্যাচার, নিপীড়ন ও নির্যাতনের হাত থেকে নিজেদের রাজাত্ব করা।
আদিবাসী সমাজ উন্নয়ন সমিতির সভাপতি বলেন, ১৮৫৫ সালের ৩০ জুন যুদ্ধ শুরু হয় এবং ১৮৫৬ সালের নভেম্বর মাসে তা শেষ হয়। সাঁওতালরা তির-ধনুক ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে যুদ্ধ করলেও ইংরেজ বাহিনীর হাতে ছিল বন্দুক ও কামান। তারা ঘোড়া ও হাতি যুদ্ধে ব্যবহার করেছিল। এ যুদ্ধে ইংরেজ সৈন্যসহ প্রায় ১০ হাজার সাঁওতাল যোদ্ধা মারা যান। যুদ্ধে সিদু-কানহু-চান্দ ও ভাইরো পর্যায়ক্রমে নিহত হলে ১৮৫৬ সালের নভেম্বর মাসে যুদ্ধ শেষ হয় ও বিদ্রোহের পরিসমাপ্তি ঘটে।

আরও সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।