1. sbnews2016@gmail.com : সবুজ বাংলা নিউজ : সবুজ বাংলা নিউজ
  2. support@wordpress.org : Support :
  3. uttam.birganj14@gmail.com : বার্তা বিভাগ : বার্তা বিভাগ
রবিবার, ২২ মে ২০২২, ০৮:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কাহারোলে ওয়ার্ল্ডভিশনের মানবিক কর্মিদের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও অমানবিক কাজের অভিযোগ পাচ মাসেও তদন্ত মিলেনি যোগ্যতা ও মেধাকে দেশের জন্য সম্প্রসারণ করাই হচ্ছে আমিই পারি চেঞ্জ মেকার এ্যাওয়ার্ড দিনাজপুরের কাহারোলে অভ্যন্তরীণ বোরো ধান ও চাল সংগ্রহ উদ্বোধন বিরামপুরে ঝড়ে বিদ্যালয়ের টিন উড়ে গেছেঃ ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি ইভটিজিং করার দায়ে বিরামপুরে ১ যুবকের কারাদণ্ড বীরগঞ্জে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে প্রতিপক্ষ কর্তৃক বাঁশ কর্তন বীরগঞ্জে মরহুম ইব্রাহীম মিয়ার মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ঘোড়াঘাটে যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার ঘোড়াঘাটে বোরো ধান সংগ্রহে লটারীতে কৃষক নির্বাচন ডোমারে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন আশ্রয়কেন্দ্রে ১০টি পরিবারসহ মোট ২০টি অসহায় পরিবারে’কৈমারী গার্লস ক্লাবে’র ঈদ উপহার বিতরণ” কাহারোলে নারী অধিকার ও সহিংশতা প্রতিরোধ শীর্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত মাথা গোঁজার ঠাঁই হলো অসহায় সাহেব আলীর বীরগঞ্জে মিনিবাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে মোটরসাইকেল আরোহী নিহত বীরগঞ্জে উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর ২৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন

করোনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। বিপাকে বীরগঞ্জের বই ব্যবসায়ীরা

বার্তা ডেক্স
  • প্রকাশের সময়: সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৬৫ জন দেখেছেন

বিকাশ ঘোষ,বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:

কোভিড -১৯) করোনাভাইরাসের সংক্রামন ঠেকাতে গত মার্চ থেকে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এতে করে লাইব্রেরি ব্যবসায় াঅঅাালোকসানের মুখে পড়েছে বই ব্যবসায়ীরা। বীরগঞ্জ উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন ও পৌরসভা মিলে প্রায় ২৮টি লাইব্রেরি বিগত ৬/৭ মাস ধরে তাদের পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর দিন কাটাচ্ছে। বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতির বীরগঞ্জ উপজেলা শাখা’র সভাপতি আব্দুল মালেকের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, বীরগঞ্জ উপজেলায় প্রায় ২৮টি লাইব্রেরির মালিকদের প্রতি মাসে লোকসান গুণতে হচ্ছে। পৌরশহরে ছোট- বড় মিলে ৮/৯টি লাইব্রেরি আছে। বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবেলায় পুস্তক ব্যবসায়ীরা ব্যাংক ও এনজিও থেকে ঋণ করে পরিশোধ করতে না পেরে এখন বিপাকে পড়েছে। বীরগঞ্জ পৌরশহরে উল্লেখযোগ্য লাইব্রেরির মধ্যে শিক্ষক লাইব্রেরি,কিশোর লাইব্রেরি,প্রামাণিক লাইব্রেরি, RH ডিজিটাল লাইব্রেরি ও নুরজাহান লাইব্রেরি অন্যতম। এসব লাইব্রেরিতে প্রতিদিন গড়ে বই বিক্রি হতো ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকার মতো। কিন্তু দীর্ঘদিন স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কিন্ডারগার্ডেন বন্ধ থাকায় বিক্রি নেই বললেই চলে। কোন রকম মাত্র প্রতিষ্ঠান খোলা রেখছেন পুস্তক ব্যবসায়ীরা। সরেজমিনে দেখা গেছে, করোনার আগে যেখানে কথা বলার সময় পেতোনা বই বিক্রেতারা বর্তমানে ক্রেতা না থাকার কারণে অলস সময় পার করছেন অধিকাংশ কর্মচারীরা। কেউ মোবাইলে নেট ব্যবহার করছেন। কেউ নিজেদের দোকানের বই পড়ে সময় পার করছেন। সেখানে প্রায় ঘণ্টা খানেক অবস্থান করেও কোন ক্রেতাসাধারণের দেখা মিলেনি। শিক্ষক লাইব্রেরির মালিক ও পুস্তক ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আব্দুল্লাহ জানান, করোনার আগে কাস্টমারের সাথে কথা বলার সময় পেতাম না। আগে সকাল ৮ টার দিকে দোকানে আসতাম যেতাম রাত ১২ টায়। বর্তমানে ক্রেতার সংখ্যা কম হওয়ায় প্রায় সময়ই বসে কাটাতে হচ্ছে। এভাবে আর বেশি দিন চলতে থাকলে এ পেশা থেকে আমাদের সরে আসতে হবে

 

 

 

সেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ:
© All rights reserved © 2019 Sabuj Bangla News
Theme Designed BY Kh Raad ( Frilix Group )