সাতক্ষীরায় জেলা বঁসন্তের শুরুতে গাছজুড়ে আমের মুকুলে ভালো ফলনের হাতছানি সাতক্ষীরায় জেলা বঁসন্তের শুরুতে গাছজুড়ে আমের মুকুলে ভালো ফলনের হাতছানি – সবুজ বাংলা নিউজ
  1. [email protected] : সবুজ বাংলা নিউজ : সবুজ বাংলা নিউজ
  2. [email protected] : বার্তা বিভাগ : বার্তা বিভাগ
রবিবার, ২০ জুন ২০২১, ০৭:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আদাজল খেয়ে মাঠে নেমেছে বিএনপি বীরগঞ্জ উপজেলা বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের আয়োজনে দিনাজপুর- ১ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য এমপি’র সুস্থ্যতা দোয়া কামনায় বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত। কুড়িগ্রামে শিশুশ্রম সবচেয়ে বেশি কাহারোল উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়ন পরিষদের আয়োজনে মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি’র রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত দিনাজপুর বীরগঞ্জে ৯ নং সাতোর ইউনিয়নের দলুয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও মহাবিদ্যালয় আয়োজনে মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপির রোগমুক্তি কামনায় দোয়া অনুষ্ঠিত বীরগঞ্জে আর্দশ কৃষকদের মাঝে প্রশিক্ষণের শুভ উদ্বোধন সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত এক নারীর কাহারোলে মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি’র রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত বীরগঞ্জ উপজেলা রিক্সা ও ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের আয়োজনে মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি’র রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত কুড়িগ্রামে ‘জাম্ক ফুড, পথ ও খোলা খাবার না খেলে অনেক রোগ থেকে মুক্তি মিলে’ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

সাতক্ষীরায় জেলা বঁসন্তের শুরুতে গাছজুড়ে আমের মুকুলে ভালো ফলনের হাতছানি

বার্তা ডেক্স
  • প্রকাশের সময়: মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
  • ২৬ জন দেখেছেন

 

মোঃ এহসানউল্লাহ আল মামুন, সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধিঃ

ৠতুরাজ বসন্তের শুরুতে সাতক্ষীরার জেলা বিভিন্ন এলাকাজুড়ে ম-ম ঘ্রাণে সৌরভ ছড়াচ্ছে আমের মুকুল। জানান দিচ্ছে পরিপুষ্ট আমের ফলনের আর স্বাদে তৃপ্তির ছোঁয়ার।
চারদিকের আমের মুকুলের সুবাসে আন্দোলিত করে তুলছে মানুষের মন।

আমের পাশাপাশি কাঁঠালসহ গরমকালের বাহারি হরেক রকমের সুস্বাদু ফলের ফলনের হাতছানি দৃশ্যমান সাতক্ষীরা জেলার সবুজ প্রকৃতির মাঝে।
একই সুতোয় গাঁথা শুরু হয়েছে বসন্তের ফাগুন আর আমের মুকুল।

বছরের নির্দিষ্ট এই সময়জুড়ে কমবেশি সব শ্রেণির মানুষের আমের ফলন করতে দেখা যায়; হোক বসত বাড়ির আঙিনায় কিংবা বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে বাগানে। আর স্বাদের দৃষ্টি থাকে সবুজ পাতায় ঢাকা আমগাছের শাখা-প্রশাখায়।

ইতোমধ্যে সদ্য মুকুল ফোটার এমন দৃশ্য এখন বিস্তৃত সাতক্ষীরার বিভিন্ন শহর ও গ্রামীণ জনপদেও। সব এলাকাতেই এখন প্রচুর আমবাগান রয়েছে।

জানা গেছে, জাতীয় অর্থনীতিতে আম লাভজনক মৌসুমি ফল ব্যবসা হওয়ায় প্রতিবছরই বাগানের সংখ্যা বাড়ছে। গড়ে ওঠছে নতুন নতুন জাতের আমবাগান। বিশেষ করে ল্যাংড়া, হিমসাগর গোপালভোগ, আম্রপালী, ক্ষিরসাপাত, আশ্বিনা সহ নানান জাতের হাইব্রিড গাছই বেশি হচ্ছে।

সাতক্ষীরার আম ইতোমধ্যে দেশজুড়ে প্রসিদ্ধ হয়েছে। স্থানীয় চাহিদা পূরণ করে দেশের বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে সাতক্ষীরার আম। এমনকি গত কয়েক বছর ধরে ইউরোপসহ বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে সাতক্ষীরার আম। ফলে স্বাভাবিকভাবেই সাতক্ষীরার প্রান্তিক এলাকাজুড়ে আম চাষাবাদে সম্পৃক্ত হচ্ছেন অনেকে।

অনেকে বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে মুকুল আসার আগেই গাছের আম কিনে নেন যা স্থানীয় ভাষায় আম গাছ কেনেন। এক মৌসুমের পাশাপাশি কয়েক মৌসুমের জন্য অর্থাৎ একাধিক বছরের অন্য আম গাছ কেনেন। আবার অনেকে গাছের আম দেখে বা মুকুল কিংবা গুটি আম দেখে গাছভর্তি আম কিনে থাকেন। স্থানীয়দের পাশাপাশি দূরদূরান্ত থেকে ব্যবসায়ীরা এসে এখানে আম ব্যবসায় যুক্ত হচ্ছেন।

আম ব্যবসায়ীরা জানান, মাঘের শেষে আম গাছে মুকুল আসে। কিছুক্ষেত্রে পৌষের শেষেও আগাম মুকুল আসে। নিয়মিত পরিচর্যায় পরবর্তীতে ছোটছোট আম বা গুটি আম ফলন হয়। বৈশাখ মাসে বা তার আগে-পরেও আম খাওয়ার উপযোগী হয়।

তারা আরো জানান, মুকুলের আধিপত্যে আম গাছ দেখে আমচাষিরা আশার আলো দেখছেন। প্রতিদিনই চলছে স্প্রেসহ অন্যান্য পরিচর্যা। আমগাছের গোড়ায় মাটি দিয়ে উঁচু করে দেয়া হচ্ছে সেচ।

এদিকে, কৃষি সংশ্লিষ্ট বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তারা বলছেন, পুরোপুরিভাবে শীত বিদায়ের আগেই আমের মুকুল আসা ভালো নয়। হঠাৎ ঘন কুয়াশা পড়লেই আগেভাগে আসা মুকুল ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে, যা ফলনেও প্রভাব ফেলবে।
যদিও প্রাকৃতিক নিয়মে ফাগুন মাসে ঘন কুয়াশার আশঙ্কা খুবই কম। এর পরও জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে প্রকৃতি বিরূপ আচরণ করলে আমের মুকুল ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন তারা।
আবার মাঝে মধ্যে ঘনকুয়াশা পড়লেও মুকুলের ক্ষতি হতে পারে। পাউডারি মিলডিউ রোগে আক্রান্ত হয়ে এসব মুকুলের অধিকাংশই ঝরে যেতে পারে। ফলে আক্রান্ত বাগান মালিকরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। তাই শেষ পর্যন্ত না দেখে বলা কঠিন।

এ বিভাগের আরও সংবাদ:
© All rights reserved © 2019 Sabuj Bangla News
Web Designed By : Prodip Roy