বীরগঞ্জে কোচিং না করায় এস এস সি পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা নেওয়া হল না বীরগঞ্জে কোচিং না করায় এস এস সি পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা নেওয়া হল না – সবুজ বাংলা নিউজ
  1. [email protected] : সবুজ বাংলা নিউজ : সবুজ বাংলা নিউজ
  2. [email protected] : বার্তা বিভাগ : বার্তা বিভাগ
রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৬:০২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
হিমাগারে আলু সংরক্ষণ ভাড়া বাড়ানোর প্রতিবাদে কুড়িগ্রামে মানববন্ধন বীরগঞ্জে পূজা উদযাপন কমিটি উদ্যোগে এমপি গোপালের রোগ মুক্তি কামনায় প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত নিজপাড়া -১ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের টিউবওয়েল চুরি,ভয়াবহ অগ্নিকান্ড দিনাজপুরের বীরগঞ্জের রসুলপুর গোধূলী বৃদ্ধাশ্রমের আয়োজনে মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি’র রোগমুক্তি কামনায় দোয়া প্রার্থনা ডিমলায় অটোচালকে গলা কেটে হত্যার চেষ্টা বীরগঞ্জে নদীতে ডুবে ইব্রাহিম মেমোরিয়াল শিক্ষা নিকেতনের ছাত্রীর মৃত্যু বিরামপুরের জামাই হলেন রেল মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন ভিসি কলিমউল্লাহ অভিনীত সিনেমার ভিডিও ভাইরাল! বাবার পর ইয়াবাসহ মা-ছেলে আটক

বীরগঞ্জে কোচিং না করায় এস এস সি পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা নেওয়া হল না

বার্তা ডেক্স
  • প্রকাশের সময়: শুক্রবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২০
  • ২৭ জন দেখেছেন

 

বিকাশ ঘোষ, বীরগঞ্জ, (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার ২নং পলাশবাড়ী ইউনিয়নের বাহাদুর হাট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের এস এস সি পরীক্ষার্থীদেয় কোচিং না করার কারণে বিদায় সংবর্ধনা দেয়নি প্রধান শিক্ষক মোঃ মোকাররম ইসলাম । এমনকি পরীক্ষার্থীরা নিজেরাই বিদ্যালয়ের জন্য সেলিং ফ্যান এবং তাদের জুনিয়র বোনদের জন্য বিদায় উপলক্ষে কিছু তোবারক নিয়ে গেলেও সেটি নিতে দেয়নি এবং তাদেরকে জুনিয়র বোনদের সামনে চরম অপমান করে ।
এবিষয়ে ওই বালিকা বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগের পরীক্ষার্থী মোছাঃ সোনা মনি আক্তার বলেন, বিদ্যালয়ে কোচিং না করার কারণে আমাদের বিদায় দেবে না সেটাও আমরা মেনে নিয়েছি। কিন্তু স্যাররা আমাদের ৫ বছর পড়িয়েছেন তার জন্য আমরা সেলিং ফ্যান গিফট ও আমাদের জুনিয়র বোনদের জন্য খুরমা নিয়ে স্যারদের কাছে যাই, স্যার আমাদের জুনিয়র বোনদের ডেকে এনে তাদের সামনে বলেন, তোমরা আমাদের কাছে কোচিং করো নাই, আমরা তোমাদের গিফট এবং তোবারক নিতে পারবো না। তারপর আমরা কোচিং না করার কারণে ভুল শিকার করলেও স্যার আমাদের কথা শুনেনি,পরে আমরা ফ্যান আর তোবারক গুলো স্থানীয় মসজিদে দিয়ে দিছি।
আরেক পরীক্ষার্থী মোছাঃ আয়েসা সিদ্দিকা আক্তার বলেন, আমরা মোট ১৮ জন পরীক্ষার্থী গত ২৫ জানুয়ারি বিদ্যালয়ে ফ্যান আর তোবারক নিয়ে গেছিলাম, কিন্তু স্যার আমাদের ফ্যান তো নেয়নি,তোবারক গুলো ছোট বোনদের দিতে দেয়নি। অভিভাবক মোঃ আলতাফুর রহমান বলেন, আমার মেয়ে কথায় কোচিং করাবো সেই সিদ্ধান্ত তো প্রধান শিক্ষক নিতে পারেনা, তারা তো ফ্রি কোচিং করাবে না, এজন্য আমরা আমাদের মেয়েদের বাহিরে কোচিং করার কারণে এবার বিদায় দেওয়া হলো না। আরেকজন মোঃ আশরাফ আলী বলেন, এই বিদ্যালয়ের শিক্ষাকরা বিদ্যালয় চলাকালীন কোচিং করায়, তার জন্য আমার মেয়েকে অন্য জাগায় কোচিং করার কারণে এবার বিদায় দেয় নাই। এজন্য মেয়েগুলো খুব কষ্ট পেয়েছে। এবিষয়ে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ মিস্টার আলী যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিদায় অনুষ্ঠান আয়োজন করার কথা বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষকের, কিন্তু কেনো তারা করেনি সেটা আমি জানিনা। এবিষয়ে প্রধান শিক্ষক মোঃ মোকাররম ইসলাম বলেন, আমরা বলেছিলাম আমাদের এখানে কোচিং বা অতিরিক্ত ক্লাস করলে ভালো রেজাল্ট হবে, কিন্তু তারা সেটা করেনি দেখে আমরা বিদায় দেই নাই।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইয়ামিন হোসেন জানান, আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখবো।

  • 205
    Shares
এ বিভাগের আরও সংবাদ:
© All rights reserved © 2019 Sabuj Bangla News
Web Designed By : Prodip Roy