বীরগঞ্জে হারিয়ে যাচ্ছে বৌরানি মাছ বীরগঞ্জে হারিয়ে যাচ্ছে বৌরানি মাছ – সবুজ বাংলা নিউজ
  1. [email protected] : সবুজ বাংলা নিউজ : সবুজ বাংলা নিউজ
  2. [email protected] : বার্তা বিভাগ : বার্তা বিভাগ
বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ০২:১৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কুড়িগ্রামে শিশুশ্রম সবচেয়ে বেশি কাহারোল উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়ন পরিষদের আয়োজনে মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি’র রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত দিনাজপুর বীরগঞ্জে ৯ নং সাতোর ইউনিয়নের দলুয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও মহাবিদ্যালয় আয়োজনে মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপির রোগমুক্তি কামনায় দোয়া অনুষ্ঠিত বীরগঞ্জে আর্দশ কৃষকদের মাঝে প্রশিক্ষণের শুভ উদ্বোধন সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত এক নারীর কাহারোলে মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি’র রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত বীরগঞ্জ উপজেলা রিক্সা ও ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের আয়োজনে মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি’র রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত কুড়িগ্রামে ‘জাম্ক ফুড, পথ ও খোলা খাবার না খেলে অনেক রোগ থেকে মুক্তি মিলে’ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত কুড়িগ্রামে ৩টি ওয়ার্ডে চলাচলে বিধি নিষেধ আরোপ বীরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে এমপি গোপাল এর রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

বীরগঞ্জে হারিয়ে যাচ্ছে বৌরানি মাছ

বার্তা ডেক্স
  • প্রকাশের সময়: বুধবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ২৪৫ জন দেখেছেন

 

বীরগঞ্জ,দিনাজপুর থেকে বিকাশ ঘোষঃ দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার নদ-নদী থেকে হারিয়ে যাচ্ছে ‘বৌরানি ‘মাছ। এখনো বর্ষাকাল আসে যায় সুস্বাদু বৌরানি মাছ দেখা মিলে না। মৎস্যভান্ডার খ্যাত বীরগঞ্জ পৌরসভার দৈনিক বাজারে মিঠা পানির মাছ বৌরানী দেখা মিলে না। উত্তরঞ্চলের দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তর জানিয়েছেন বৌরানী মাছের দুটি প্রজাতি পাওয়া যায়। যা দেখেন অনেকটা একই ধরনের হলেও দেহের বাহ্যিক বৈশিষ্ট্য ভিত্তিতে এদের পৃথক করা যায়। এই দুটি প্রজাতির বৈজ্ঞানিক নাম ( বেটিয়া ডারিও) এবং( বেটিয়া লাহাচিটা) উত্তরঞ্চলে মাছ দুটি বৌরানীমাছ বা রানী মাছ নামে সুপরিচিত। দেশের অন্যান্য স্থানে মাছ দু’টি বেটি, পুতুল, বেতাঙ্গী ইত্যাদি নাম সুপরিচিত। বৌরানী মাছ দেখতে অত্যন্ত আকর্ষণীয় এবং চ্যাপটা লম্বাটে দেহঅধিকারী। অভয় প্রজাতিরই মাছ আকারে ছোট। চার জোড়া ক্ষুদ্রকৃতি স্পর্শী থাকে বৌরানী মাছে প্রায় সব ধরণের মিঠা পানিতে যেমন -নদ- নদী, খাল-বিল, হাওরে তলাদেশ পরিষ্কার পানিতে বসবাস করতে পছন্দ করে। তবে কখনও কখনও ঘোলাপানিতেও এদের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। বীরগঞ্জ ঢেপা নদী, করতোয়া নদীসহ প্রায় সব নদ-নদী, খালবিল জলাশয় একসময় প্রচুর পরিমাণে বৌরানী মাছ পাওয়া যেত। এখন শুধু বর্ষাকালে অতি সামান্য পরিমাণে বৌরানী মাছের দেখা মেলে। এছাড়া দেশের বগুড়া,রাজশাহী, নাটোর, ময়মনসিংহ, সিলেট, ফরিদপুর, কুষ্টিয়া, পার্বত্য চট্রগ্রামসহ বিভিন্ন জেলার জলাশয় বিশেষ করে নদীতে বৌরানী মাছ উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণীবিদ্য বিভাগের অধ্যাপক ড.নজরুল ইসলাম জানান, ২০০৭ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে, চলবিল সংলগ্ন বিভিন্ন জেলায় মাছের আড়ত বাজারে খুবই স্বল্পসংখ্যক উপস্থিতির মধ্যে বেটিয়া লোহাচিটার পরিমাণ তুলনামূলকভাবে বেটিয়া ডরিও অপেক্ষা বেশি। বৌ বা বৌরানী মাছ সাধারণত: মে থেকে অক্টোবর মাসের মধ্যবতী সময় প্রজনন করে থাকে। বৌরানী মাছ খেতে খুব সুস্বাদু এবং বাজারে এই মাছের বেশি চাহিদা রয়েছে। প্রায় সকল শ্রেণি -প্রেশার ক্রেতাই এই মাছ খুব পছন্দ করেন। অক্টোবরের শেষ থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত বর্ষাকালের শেষে যখন বিল-নদীর পানি কমে যেতে থাকে তখন এরা জেলেদের জালে বেশি ধরা পড়ে। আর এসময়ই বাজারে বৌরানী মাছের সামান্য পরিমাণে উপস্থিতি চোখে পড়ে।

এ বিভাগের আরও সংবাদ:
© All rights reserved © 2019 Sabuj Bangla News
Web Designed By : Prodip Roy