যমুনা ইছামতি নদীর ভাঙনের কবলে সিরাজগঞ্জ সলঙ্গার নলকা কায়েম গ্রামের বিদ্যালয় যমুনা ইছামতি নদীর ভাঙনের কবলে সিরাজগঞ্জ সলঙ্গার নলকা কায়েম গ্রামের বিদ্যালয় – সবুজ বাংলা নিউজ
  1. [email protected] : সবুজ বাংলা নিউজ : সবুজ বাংলা নিউজ
  2. [email protected] : বার্তা বিভাগ : বার্তা বিভাগ
রবিবার, ০১ অগাস্ট ২০২১, ০১:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বীরগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি গঠনঃ সভাপতি অন্তু ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম মুর্শিদ ধর্ম নিরপেক্ষতাই বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগের পরিচয় -মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি উলিপুরে যৌন নিপীড়নের চেষ্টার মামলায় অভিযুক্ত মুনসুর আলী গ্রেপ্তার গার্মেন্টস খোলার খবরে যাত্রীদের ঢল বীরগঞ্জে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত -১, ইউপি সদস্য সহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা মাছ ধরার উৎসবে মেতেছে বীরগঞ্জের শিক্ষার্থীরা কাহারোল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করলেন মনোরঞ্জন শীল গোপাল গৌরীপুরের মুখুরিয়ার প্রাচীন মসজিদের ঈমাম স্বেচ্ছায় অবসর নিলেন ৬০ বছরের ঈমামতি জীবন ছেড়ে ফিরছেন নিজ বাড়ি মাছ ধরার উৎসবে মেতেছে ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা বীরগঞ্জে গাছ লাগানোকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় একজন নিহত যে কোন সংকটে অসহায়দের পরমবন্ধু শেখ হাসিনা -মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি কাহারোলে পাটের বাম্পর ফলন, দাম পেয়ে কৃষকেরা খুশি কুড়িগ্রামে একই পরিবারের ৭ জনসহ ৯ রোহিঙ্গা আটক বীরগঞ্জে ওএমএস কেন্দ্রে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড় বীরগঞ্জ উপজেলার এসিল্যান্ডের বিদায় ও বরণ অনুষ্ঠান

যমুনা ইছামতি নদীর ভাঙনের কবলে সিরাজগঞ্জ সলঙ্গার নলকা কায়েম গ্রামের বিদ্যালয়

বার্তা ডেক্স
  • প্রকাশের সময়: রবিবার, ১৩ অক্টোবর, ২০১৯
  • ৮০ জন দেখেছেন

ফারুক আহমেদ,সিরাজগঞ্জ থেকে. সিরাজগঞ্জ যমুনা ইছামতি নদী ভাঙন ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। ক্ষতি হয়েছে অনেক কৃষকের জমি। যমুনা ইছামতি নদীর ভাঙনে কবলে হুমকির মুখে পড়েছে সিরাজগঞ্জ সলঙ্গার নলকা কায়েম গ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে রায়গঞ্জ পজেলার চর নলকা ইউনিয়নের নলকা কায়েম এলাকায় এক কিলোমিটারজুড়ে যমুনা ডাল ইছামতি নদীর ভাঙন দেখা দেয়। এতে কয়েকটি বসতবাড়ি বিলীন হয়েছে। ভাঙনের মুখে পড়ে আরও অনেক বাড়িঘর ও একটি নলকা কায়েম গ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। নদীর তীর থেকে মাত্র ৩ থেকে ৪ হাত দূরে আছে নলকা কায়েম গ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতল ভবনটি। যে কোনো সময় ভবনটি নদীতে বিলীন হয়ে যেতে পারে। হুমকির মুখে পরে আছে স্কুলটি। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল খালেক জানান,বিদ্যালয়টি নদীভাঙনের মুখে পড়ায় গত কয়েক দিনে আগে আসবাবপত্র ও প্রয়োজনীয় জিনিসিপত্র সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী রয়েছে ৪০০ জন। এসব অনেক শিক্ষার্থীদের তাদের অবিভাবকেরাই স্কুলে পাঠাতে ভয় পাচ্ছেন। তাই বর্তমানে অনেক শিক্ষার্থীদের সংখ্যা কমে গেছে। আবার উপস্থিতি অনেক শিক্ষার্থীদের এখন ভয়ে খোলা আকাশের নিচে পাঠদান করাতে হচ্ছে। প্রধানশিক্ষক আব্দুল খালেক আরো জানান, বিদ্যালয় ভবনটি যমুনা ইছামতি নদীর ভাঙনের কবলে হুমকির মুখে পড়েছে সেই বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনকে জানানো হয়েছে। কায়েম গ্রামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল খালেকসহ স্থানীয় লোকজন প্রধানমন্ত্রীসহ স্থানীয় এমপি মহাদয় ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি বিদ্যালয় রক্ষার্থে বিদ্যালয়ের প্রতি সু-নজর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

এ বিভাগের আরও সংবাদ:
© All rights reserved © 2019 Sabuj Bangla News
Web Designed By : Prodip Roy