‘ইয়াসমীন ট্রাজেডীর ২৪ বছর পূর্তি ও সামু, কাদের, সিরাজসহ নিহতদের স্মরণে আয়োজিত স্মরণ সভায় এমপি গোপাল নারী-শিশু নির্যাতন ও ধর্ষন মামলাগুলো ৫ মাসের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে হবে ‘ইয়াসমীন ট্রাজেডীর ২৪ বছর পূর্তি ও সামু, কাদের, সিরাজসহ নিহতদের স্মরণে আয়োজিত স্মরণ সভায় এমপি গোপাল নারী-শিশু নির্যাতন ও ধর্ষন মামলাগুলো ৫ মাসের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে হবে – সবুজ বাংলা নিউজ
  1. [email protected] : সবুজ বাংলা নিউজ : সবুজ বাংলা নিউজ
  2. [email protected] : বার্তা বিভাগ : বার্তা বিভাগ
রবিবার, ০১ অগাস্ট ২০২১, ০১:১৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
উলিপুরে যৌন নিপীড়নের চেষ্টার মামলায় অভিযুক্ত মুনসুর আলী গ্রেপ্তার গার্মেন্টস খোলার খবরে যাত্রীদের ঢল বীরগঞ্জে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত -১, ইউপি সদস্য সহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা মাছ ধরার উৎসবে মেতেছে বীরগঞ্জের শিক্ষার্থীরা কাহারোল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করলেন মনোরঞ্জন শীল গোপাল গৌরীপুরের মুখুরিয়ার প্রাচীন মসজিদের ঈমাম স্বেচ্ছায় অবসর নিলেন ৬০ বছরের ঈমামতি জীবন ছেড়ে ফিরছেন নিজ বাড়ি মাছ ধরার উৎসবে মেতেছে ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা বীরগঞ্জে গাছ লাগানোকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় একজন নিহত যে কোন সংকটে অসহায়দের পরমবন্ধু শেখ হাসিনা -মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি কাহারোলে পাটের বাম্পর ফলন, দাম পেয়ে কৃষকেরা খুশি কুড়িগ্রামে একই পরিবারের ৭ জনসহ ৯ রোহিঙ্গা আটক বীরগঞ্জে ওএমএস কেন্দ্রে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড় বীরগঞ্জ উপজেলার এসিল্যান্ডের বিদায় ও বরণ অনুষ্ঠান বাংলাদেশে একজনও করোনা ভ্যাকসিন ছাড়া থাকবে না -মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি ঘোড়াঘাটে সেনাবাহিনীর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

‘ইয়াসমীন ট্রাজেডীর ২৪ বছর পূর্তি ও সামু, কাদের, সিরাজসহ নিহতদের স্মরণে আয়োজিত স্মরণ সভায় এমপি গোপাল নারী-শিশু নির্যাতন ও ধর্ষন মামলাগুলো ৫ মাসের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে হবে

বার্তা ডেক্স
  • প্রকাশের সময়: মঙ্গলবার, ২৭ আগস্ট, ২০১৯
  • ৮১ জন দেখেছেন

বিকাশ ঘোষ ॥- বাংলাদেশে প্রতিবছর ২৪ আগস্ট নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস পালন করা হয়। কিন্তু আজও কি ধর্ষনের ঘটনা কমেছে ? এর কারণ হলো মামলার দীর্ঘসুত্রতা। দীর্ঘদিন ধরে মামলা চলার কারণে অপরাধীরা পার পেয়ে যায়। তাই নারী-শিশু নির্যাতন ও ধর্ষন মামলা গুলো বিশেষ ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে ৫ মাসের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে হবে। 
২৭ আগস্ট মঙ্গলবার দশমাইল সাদিপুর স্কুল মাঠ প্রাঙ্গণে ‘ইয়াসমীন ট্রাজেডীর ২৪ বছর পূর্তি দিবস উদযাপন ও নিহতদের স্মরণে আয়োজিত ‘স্মরণ সভায়’ প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইয়াসমিন ধর্ষন ও হত্যার প্রথম প্রতিবাদকারী নেতা ও সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, দিনাজপুরের সহজ-সরল ও বাহে মানুষ গুলো ৯৫’র ইয়াসমিন ধর্ষন ও হত্যার প্রতিবাদ করতে গিয়ে দেখিয়েছেন তাদের বাহুকার জোড় কত। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের ফলে আমরা যে বিচার পেয়েছি তা বিশে^র ইতিহাসে বিরল। কিশোরী ইয়াসমিন পতিতা পুলিশ এটাকে বাস্তবায়ন করতে চেয়েছিল। কিন্তু সেদিন যদি দিনাজপুরের মানুষ জেগে না উঠত তাহলে হয়তো অপরাধি পুলিশের বদলে আমার ফাঁসি হতো। 
এমপি গোপাল আরো বলেন, বিএনপি এবং খালেদা জিয়ার প্রতিনিধি সে সময় দিনাজপুরে এসে সাধারণ মানুষের আট দফা দাবী মেনে নিলেও তারা তা বাস্তবায়ন করেনি। পরবর্তীতে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে মামলা প্রত্যাহারসহ নিহত ও আহতদের ক্ষতিপূরণ দিয়েছে। 
শহীদ সামু-কাদের-সিরাজ স্মরণ কমিটির আহবায়ক মো. মজিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও দিনাজপুর নাট্য সিমিতির সভাপতি ও দৈনিক আজকের দেশবার্তা পত্রিকার সম্পাদক বিশিষ্ট সাংবাদিক চিত্ত ঘোষ এর সঞ্চালনায় স্মরণ সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য জাকিয়া তাবাসসুম জুই, দিনাজপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুল ইমাম চৌধুরী, কাহারোল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল মালেক সরকার, দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বরুপ কুমার বকসী বাচ্চু, কাহারোল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হাফিজুল ইসলাম চৌধুরী, দিনাজপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ওয়াহেদুল আলম আটিস্ট, দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক গোলাম নবী দুলাল, সুন্দরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. শরিফউদ্দিন, সুন্দরপুর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মো. হামিদুল ইসলাম, কাহারোল উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মো. বজলুর করিম বাবুল। 
এর আগে ইয়াসমিন আন্দোলনে নিহত সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় বিশেষ মোনাজাত ও এমপি গোপালের পিতৃবিয়োগে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এরপর শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের বাস্তবায়নে ৭৫ লাখ টাকা ব্যয়ে কাহারোল দশমাইলে পূর্ব সাদিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ইয়াসমিন ট্রাজেডির আন্দোলনে শহীদ সামু-কাদের-সিরাজ নামকরণে নব-নির্মিত একাডেমিক ভবনের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল।
উল্লেখ্য, ১৯৯৫ সালের ২৪ আগস্ট কিছু বিপথগামী পুলিশ সদস্য ইয়াসমিনকে ধর্ষনের পর শ^াস রোধ করে হত্যা করে। তারই প্রতিবাদে যে আন্দোলন গড়ে উঠেছিল তার চূড়ান্ত রুপ নেয় ২৭ আগস্ট। সেদিন বিক্ষুব্ধ জনতার মিছিলে পুলিশের গুলিতে সামু, কাদের, সিরাজসহ ৭ জন নিহত হয়। সেই থেকে তাদের স্মরণে ২৭ শে আগস্ট স্মরণ সভা পালিত হয়ে আসছে।

এ বিভাগের আরও সংবাদ:
© All rights reserved © 2019 Sabuj Bangla News
Web Designed By : Prodip Roy