ইয়াসমীন ট্রাজেডি আন্দোলন সুচনাকারী ব্যক্তিত্ব মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপির একান্ত সাক্ষাৎকারে দিনাজপুরের মানুষ বুঝিয়ে দিয়েছে আমরা শান্তিপ্রিয় কিন্তু অন্যায়ের প্রতিবাদকারী ইয়াসমীন ট্রাজেডি আন্দোলন সুচনাকারী ব্যক্তিত্ব মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপির একান্ত সাক্ষাৎকারে দিনাজপুরের মানুষ বুঝিয়ে দিয়েছে আমরা শান্তিপ্রিয় কিন্তু অন্যায়ের প্রতিবাদকারী – সবুজ বাংলা নিউজ
  1. [email protected] : সবুজ বাংলা নিউজ : সবুজ বাংলা নিউজ
  2. [email protected] : বার্তা বিভাগ : বার্তা বিভাগ
বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ১১:৩৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কুড়িগ্রামে শিশুশ্রম সবচেয়ে বেশি কাহারোল উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়ন পরিষদের আয়োজনে মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি’র রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত দিনাজপুর বীরগঞ্জে ৯ নং সাতোর ইউনিয়নের দলুয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও মহাবিদ্যালয় আয়োজনে মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপির রোগমুক্তি কামনায় দোয়া অনুষ্ঠিত বীরগঞ্জে আর্দশ কৃষকদের মাঝে প্রশিক্ষণের শুভ উদ্বোধন সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত এক নারীর কাহারোলে মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি’র রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত বীরগঞ্জ উপজেলা রিক্সা ও ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের আয়োজনে মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি’র রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত কুড়িগ্রামে ‘জাম্ক ফুড, পথ ও খোলা খাবার না খেলে অনেক রোগ থেকে মুক্তি মিলে’ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত কুড়িগ্রামে ৩টি ওয়ার্ডে চলাচলে বিধি নিষেধ আরোপ বীরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে এমপি গোপাল এর রোগমুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

ইয়াসমীন ট্রাজেডি আন্দোলন সুচনাকারী ব্যক্তিত্ব মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপির একান্ত সাক্ষাৎকারে দিনাজপুরের মানুষ বুঝিয়ে দিয়েছে আমরা শান্তিপ্রিয় কিন্তু অন্যায়ের প্রতিবাদকারী

বার্তা ডেক্স
  • প্রকাশের সময়: রবিবার, ২৫ আগস্ট, ২০১৯
  • ৫০ জন দেখেছেন

স্টাফ রিপোর্টার॥- ইয়াসমীন ট্রাজেডির ২৪তম দিবসকে সামনে রেখে ঐতিহাসিক এই আন্দোলনের সুচনাকারী নেতা বর্তমান এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল বলেন, আন্দোলনটা আমরা শুরু করেছিলাম। কিন্তু এর শেষটা করেছেন প্রবীণ রাজনীতিক বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও সংবিধান প্রনেতা সাবেক সাংসদ এ্যাডঃ আব্দুর রহিম। তিনি না হলে ইয়াসমিন ধর্ষণ ও হত্যাকান্ডের বিচার পাওয়া হয়ত সম্ভব হতো না।
সাক্ষাৎকারে ইয়াসমীন আন্দোলনের প্রথম প্রতিবাদকারী ও আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী বর্তমানে দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল বলেন, সে সময়ের গণঅভ্যূত্থান অন্তত্যপক্ষে সমগ্র বিশ্বকে জানিয়ে দিয়েছিল মর্যাদা রক্ষার জন্য দিনাজপুর পারে এবং মর্যাদা রক্ষায় দিনাজপুরের মানুষ সর্বচ্চো ত্যাগ স্বীকার করতে প্রন্তুত।
স্বাক্ষাৎকারে তিনি আরো বলেন, ইয়াসমীন আন্দোলন বিশেষ কোন রাজনৈতিক দলের আন্দোলন ছিলনা। এ আন্দোলন ছিল সমগ্র দিনাজপুরবাসীর আন্দোলন। যার কারণে তদানিন্তন সরকার বাধ্য হয়েছিল জনতার দাবী মেনে নিতে। যদিও তারা দাবীগুলো বাস্তবায়ন করেনি। ৮ দফা দাবী মেনে নিয়ে তৎকালীন সরকার প্রধানের বিশেষ প্রতিনিধি এসে সমঝোতা করতে বাধ্য হয়। তিনি আরো বলেন, এই ঘটনার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের মানুষ শিক্ষা নিয়েছে বোনের, মায়ের স¤্রম কি ভাবে রক্ষা করতে হয়। আমরা সমগ্র বিশ্বে একটি উদাহরণ।
আন্দোলনের সফলতা সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে সংসদ সদস্য গোপাল বলেন, আমরা সফল। এই আন্দোলন একটি মাইল ফলক। আমরা দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছি দিনাজপুরের একজন গৃহপরিচারিকার জন্যও কি ভাবে রুখে দাঁড়াতে হয়।
বিচার বিষয়ে জানাতে চাইলে তিনি জানান, আমরা বিচার পেয়েছি। বিচারের রায়ে ৩ জন পুলিশের ফাঁসি হয়েছে। এ বিচার পেতে যিনি সবচেয়ে বড় ভূমিকা রেখেছেন তিনি হলেন- প্রবীণ রাজনীতিক বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও সংবিধান প্রনেতা সাবেক সাংসদ এ্যাডঃ আব্দুর রহিম। তিনি না হলে হয়ত আমরা ইয়াসমিন ধর্ষণ ও হত্যাকান্ডের বিচার পেতাম না। যখন দিনাজপুর জেলা দায়রা জজ আদালত থেকে মামলাটি রংপুর দায়রা জজ আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়, তখন প্রবীণ রাজনীতিক এম আব্দুর রহিম প্রতি তারিখে ব্যাক্তিগত উদ্যোগে বাস ভাড়া করে দলবলসহ ইয়াসমীনের মা শরীফা বেগমকে রংপুর নিয়ে যেতেন। আমরা যে বিচার পেয়েছি, সেটির জন্য এম আব্দুর রহিমের প্রতি দিনাজপুরবাসী কৃতজ্ঞ।
ইয়াসমীন আন্দোলনের পরবর্তী সময় একাধিক বই প্রকাশিত হয়েছে। যেখানে আন্দোলন সুচনাকারী নেতা হিসেবে আপনার নাম নাই বিষয়টিকে আপনি কিভাবে দেখছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটাও একটা ইতিহাস। দিনাজপুরবাসী জানে কারা আন্দোলন করেছিল। ইতিহাস বিকৃতি করে প্রকৃত ইতিহাসকে দাবিয়ে রাখা যায় না। একদিন সত্য প্রকাশ পাবেই। তাছাড়া দিনাজপুরবাসী তো জানেই।
আন্দোলন পরবর্তী সময়ে সরকারের কি ভূমিকা ছিল? প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, বিএনপি-জামাত জোট সরকার কথা দিয়ে কথা রাখেনি। তারা ৮ দফার ভিত্তিতে সমঝোতা করলেও একটি শর্ত তারা পূরণ করেনি। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে দাবীগুলো পূরণ করেছে এবং দোষীদের বিচার করেছে। তিনি বলেন, আমাদের কিছু অর্জন রয়েছে কিন্তু আমরা এখনো ক্ষতিগ্রস্থ-নিহতদের পরিবারগুলোকে পূণর্বাসন করতে পারেনি। ইয়াসমীন এখন সারা বিশে^ নারী নির্যাতন প্রতিরোধের একটি প্রতীক। তার মানে আমরা বলছি না যে, এখন সে ধরণের ঘটনা ঘটে না।
ধর্ষন-হত্যা ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধে আমাদের করনীয় কি? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমরা আইন করে দেখলাম। আইন দিয়ে ধর্ষণ-হত্যা ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধ করা সম্ভব না। তাই সামাজিক আন্দোলন দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন ও সামাজিক সচেতনতা।
ইয়াসমীন আন্দোলনের সার্বিক সফলতা বা আমাদের অর্জন কি? প্রশ্নের উত্তরে মনোরঞ্জন শীল গোপাল বলেন, অর্জন তো অবশ্যই আছে। এ ঘটনার পর আমাদের মেয়েরা অফিস আদালতে নির্ভিঘেœ কাজ করতে পারে। শহরে তারা এখন নিরাপদে বিচরণ করে। শুধু তাই নয় ইয়াসমীন এখন নারী নির্যাতন প্রতিরোধে প্রতীক হিসেবে সারা বিশে^ পরিচিত একটি নাম। দিনাজপুর জেলাকে এখন মানুষ এক নামে চেনে।
এই আন্দোলনের আপনার জীবনে কোন ঝুঁকি ছিল কি না শেষ এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, বিপদগামী কিছু পুলিশের বিরুদ্ধে আন্দোলন করেছি, ঝুঁকি তো থাকবেই। সে সময় আমাকে গুলি করে হত্যার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। আমার নামে মামলা দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু দিনাজপুরের প্রতিবাদি মানুষ সেই সময়ে বিএনপি-জামাত জোট সরকারের সকল ষড়যন্ত্রকে প্রতিহত করে দিয়েছে। দিনাজপুরের মানুষ বুঝিয়ে দিয়েছে আমরা শান্তিপ্রিয় কিন্তু অন্যায়ের প্রতিবাদকারী।

এ বিভাগের আরও সংবাদ:
© All rights reserved © 2019 Sabuj Bangla News
Web Designed By : Prodip Roy