বীরগঞ্জে ভাঙনের হুমকির মুখে ফসলি জমি বসতবাড়ি

0
2

বিকাশ ঘোষ,বীরগঞ্জ(দিনাজপুর)প্রতিনিধি

দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার আত্রাই নদীতে বৃষ্টির পানিসহ উজানের বয়ে আসা পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে উজান থেকে নেমে আসা পানিতে বীরগঞ্জের আত্রাই নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় এবারও নদী ভাঙনের আশঙ্কা করছেন তিন গ্রামের কয়েক হাজার এলাকাবাসী।নদীর পারের এলাকাবাসীর অভিযোগ, আত্রাই নদী থেকে মেশিনের সাহায্যে বালু উত্তোলনের ফলে নদীর গতিপথ হারাচ্ছে। এতে বিপর্যয় ঘটছে পরিবেশের। জীব-বৈচিত্র্য বিনষ্ট হচ্ছে। গত বছরে অনেক ফসলি জমি এই নদীর ভাঙনে বিলিন হয়ে যায়। বীরগঞ্জের গড়ফতু, বলদিয়াপাড়া ও কাশিমনগর এ তিন গ্রামের মানুষ মনে করছেন, আত্রাই নদী থেকে বালু উত্তোলন বন্ধসহ নদী ভাঙন রোধে জরুরি ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলে কয়েকশ আবাদি জমি নদী গর্ভে চলে যাবে।শনিবার সরেজমিনে দেখা গেছে, দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলার শতগ্রাম ইউপির পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া আত্রাই নদীতে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশেষ করে শতগ্রাম ইউপির গড়ফতু, বলদিয়াপাড়া ও কাশিমনগর গ্রামের ফসলি জমি ও বসতভিটা ভাঙনের আশঙ্কা করছেন স্থানীয় এলাকাবাসী। সেই সাথে আবাদি জমি আত্রাই নদী গর্ভে বিলীনের শঙ্কায় রয়েছেন তারা। এছাড়াও কয়েকশ একর ফসলি জমি ও বসতবাড়িও হুমকির মুখে রয়েছে।গড়ফতু গ্রামের বাসিন্দা মোঃ আযাহার আলী বলেন, আমার এ পর্যন্ত ১০ একর আবাদি জমি আত্রাই নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। আরও জমি বিলীন হয়ে যাওয়ার পথে। আমার মত অনেকের জমি নদী গর্ভে বিলীনের পথে।
কাশিমনগর গ্রামের বাসিন্দা মুসলিম ইসলাম লিমন বলেন, নদীর পানি বৃদ্ধি সাথে সাথে আমরা আতংকে ৫০০ পরিবার। কখন যে রাস্তা ভেঙে গ্রাম প্লাবিত হয়ে যায়। এর আগের বন্যায় রাস্তা ভেঙে কাশিমনগর গ্রাম প্লাবিত হলে অনেক পরিবারকে এলাকা ছাড়তে হয়। অনেক আবাদি জমিও নষ্ট হয়ে যায়। নদী থেকে বালু উত্তোলন বন্ধসহ নদী ভাঙন রোধে জরুরি ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবি জানান তিনি। বিষয় : নদী ভাঙ্গন বীরগঞ্জ দিনাজপুর রংপুর বিভাগ

  • 31
    Shares