বীরগঞ্জে প্রতিপক্ষের হামলায় বীরমুক্তিযোদ্ধা হাসপাতালে ভর্তি

0
40

বিকাশ ঘোষ,বীরগঞ্জ(দিনাজপুর) প্রতিনিধি :

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার মোহনপুর ইউনিয়নের মাটিয়াকুড়া গ্রামে প্রতিপক্ষের হামলায় ৭০বছরের এক বীরমুক্তিযোদ্ধা আহত হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। মামলার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মোহনপুর ইউনিয়নের মাটিয়াকুড়া মৌজার ৩৯৫ নং দাগের ৫৩ শতক জমি শান্তিপূর্ণ ভাবে বসবাস ও ভোগ দখল করে আসতেছেন বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. মোজাম্মেল হক জোরপূর্বকভাবে মামলার আসামীগণ দখল করতে আসলে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরাবর অভিযোগ করলে গত ১৯ আগস্ট ২০২০ইং উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো.ডালিম সরকার সালিশের মাধ্যমে উভয়ের পক্ষে কাগজ দেখে বীরমুক্তিযুদ্ধা মো.মোজাম্মেল হকের সম্পত্তি সীমানার খুটি স্থাপন করে দেন। পরবর্তীতে বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. মোজাম্মেল হক তার সম্পত্তির সীমানার খুটি সহিত তারকাটা দ্বারা ঘেরাও ও মেহগনির চারা রোপন করেন। এমতাবস্থায় বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মামলার আসামী মাটিয়াকুড়া গ্রামের মৃত দিঘু মোহাম্মদের ছেলে সাহাবদ্দিন, সাহাবদ্দিনের ছেলের মো. আনোয়ারুল ইসলাম, মো. উজ্জল ইসলাম, মো.আলী মুনসুর, মৃত.কছের মন্ডলের ছেলে মো.আব্দুল সামাদ, সাহাবদ্দিনের স্ত্রী মোছা. আনোয়ারা বেগম যোগসাজস করে বে-আইনি জনতায় দলবদ্ধ হয়ে হাতে বাঁশের লাঠি সোটা, লোহার রড, সাবোল, ধারালো ছোরা হাসুয়া ইত্যাদি মারাত্মক অস্ত্রে-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সম্পত্তিতে অনধিকার প্রবেশ করে তারকাটার বেড়া ও মেহগনি গাছের চারা নষ্ট করে ফেলেন। এতে করে তার আনুমানিক ৫০ হাজার টাকা ক্ষতি সাধন হয়েছে। ঘটনা দেখে বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক এগিয়ে আসলে সাহাবদ্দিনের নির্দেশে আসামী আনোয়ারুল ইসলাম তাকে বাঁশের লাঠি দিয়ে শরীরে বিভিন্ন স্থানে মারতে থাকে।পরে আসামী মো. উজ্জল ইসলাম তার দুই হাত দিয়ে মোজাম্মেল হকের গলায় চাপ দিলে শ্বাসরোধ করার চেষ্টা করে। এরপরে আসামী মো.আলী মুনসুর তাকে বিভিন্ন রকমের কিল ঘুষি মেরে বুকে জখম করে। মোজাম্মেল হকের রক্ষার্থে তার ছেলে আশিকুর রহমানের স্ত্রী নুরেস্তা আক্তার এগিয়ে আসলে আসামী মো.আলী মুনসুর নুরেস্তার শরীরে বিভিন্ন স্থানে কিল-ঘুসি মারে। পরে আসামি আনোয়ারা বেগম তার পড়নের কাপড় টানা হেচরা করে বিবস্ত করার চেষ্টা ও শ্লীলতাহানী ঘটায় এবং আসামি আনোয়ারুল ইসলাম নুরেস্তার নিকট ২৩ হাজার টাকা মূল্যের স্যামসাং অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল অসৎ উদ্দেশ্যে কেড়ে নেয়। মোবাইল ফোন রক্ষার চেষ্টা করলে আসামি সাহাবদ্দিন ও তার স্ত্রী আনোয়ারা বেগম মাটিতে ধাক্কা দিয়ে নুরেস্তার বুকে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি মারতে থাকে ও শ্বাসরোধ করার চেষ্টা করেন। এই অবস্থায় বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হকের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে তাকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে পালিয়ে যায় আসামীরা। আহত বীরমুক্তিযুদ্ধা মোজাম্মেল হককে জখমী অবস্থায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ও আহত নুরেস্তা আক্তারকে প্রাথমিক ভাবে গ্রাম ডাক্তারের কাছে চিকিৎসা দেওয়া হয়। ২৭ আগস্ট ২০২০ইং তারিখে দুপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোজাম্মেল হক বাদী হয়ে বীরগঞ্জ থানায় মামলা করেছেন। যাহার নং ৮।

  • 43
    Shares