পিতার দুরবস্থায় অর্থাভাবে লেখাপড়া বন্ধের উপক্রম ডুয়েটের মেধাবী ছাত্র শিপুলের

0
8

পিতা সুভাস চন্দ্র দাসের চরম দুরবস্থায় অর্থাভাবে লেখাপড়া বন্ধের উপক্রম হয়েছে ঢাকা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ডুয়েট) মেধাবী ছাত্র শিপুল কুমারের।

টাকার অভাবে দৈনন্দিন সংসার খরচ এবং মেধাবী ছেলের পড়াশুনার খরচ বহন করা দুর্বিষহ হয়ে পড়ায় দুঃখে-অভিমানে আত্মহত্যার চেষ্টাও করেছিলেন অসহায় মৎস্যজীবী সুভাস চন্দ্র।

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ছাপরহাটি ইউনিয়নের বামুনিপাড়া গ্রামের অতিদরিদ্র সুভাস চন্দ্র দাস ভুট্টুর তিন ছেলেমেয়ে।

তাদের মধ্যে ছেলে শিপুল চন্দ্র অত্যন্ত মেধাবী হওয়ায় এলাকার লোকজনের পরামর্শে তাকে লেখাপড়া করাতে স্কুলে ভর্তি করে দেন সুভাস।

এসএসসি পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার পর শিপুল চন্দ্র কুমার কুড়িগ্রাম পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের উপর ডিপ্লোমা করেন।

পরে তিনি পিতার আর্থিক দুরবস্থার মধ্যেও ঢাকা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় ডুয়েটে ইলেকট্রনিকাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ভর্তি হন। বর্তমানে তিনি ডুয়েটের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র।

সুভাস চন্দ্র দাস ভাড়া নেয়া পুকুরে মাছ চাষ করে এতদিন অতিকষ্টে সন্তানদের ভরণপোষণ চালিয়ে আসছিলেন। কিন্তু বর্তমানে করোনা ভাইরাসের কারনে ব্যবসা ভাল চলছে না।

সুভাস চন্দ্র ছেলের পড়ালেখার খরচের চিন্তায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। মেধাবী ছেলের পড়ালেখা খরচের জন্য মাননীয় প্রধানমন্রী সহ বিত্তবানদের হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন তার পরিবার।

  • 4
    Shares