করোনা পজিটিভ শুনেই পলাতক যুবক

0
1

বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের বিরামপুরে করোনাভাইরাস শনাক্তের খবর শুনে আইসোলেশন থেকে পালিয়েছেন মো. রুহুল আমিন (১৮) নামের এক যুবক। ওই যুবক গাজিপুর এলাকায় একটি পোশাক কারখানায় কর্মরত ছিলেন। এই ঘটনায় উপজেলা বিভিন্ন স্থানে চেকপোস্ট বসিয়ে স্বাস্থ্য বিভাগ, থানা পুলিশ ও উপজেলা প্রসাশন সারারাত অনেক খোঁজাখুঁজির পরও তাকে উদ্ধার করতে পারেনি। বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. মো. সোলায়মান হোসেন মেহেদী “সবুজ বাংলা নিউজ” কে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মো. রুহুল আমিন (১৮) উপজেলার একইর গ্রামের মো. রবিউল ইসলামের ছেলে। শুক্রবার রাতে একইর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে উপজেলা স্বাস্থ্যবিভাগের লোকজন আনতে গেলে সে পালিয়ে যায়।

বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. সোলায়মান হোসেন মেহেদী “সবুজ বাংলা নিউজ” কে বলেন, শুক্রবার সন্ধায় জেলা সিভিল সার্জন কার্যলয় থেকে বিরামপুর একই গ্রামের মো. রুহুল আমিন (১৮) নামের এক যুবকসহ উপজেলায় মোট তিনজনের শরীরে করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। এর পর উপজেলা প্রসাশন, পুলিশ ও স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন সেখানে উপস্থিত হয়ে ওই যুবককে বিরামপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে রেখে চিকিৎসা সেবার জন্য নিতে যায়। এর পর ওই যুবকের শরীরে করোনা পজিটিভ এমন খবর শুনে টয়লেট করার কথা বলে প্রচীর টপকে পালিয়ে যায়।

তিনি বলেন, করোনা আক্রান্ত ওই যুবক গাজীপুর একটি পোশাক কারখানায় কাজ করত। বেশ কয়েক দিন আগে সে এলাকায় আসলে স্থানীয় গ্রামবাসী তাকে পার্শ্ববর্তী একইর হাই স্কুলের একটি কক্ষে আইসোলেশনে রাখে। স্বাস্থ্য বিভাগ তার শরীরের নমুনা সংগ্রহ করে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠালে শুক্রবার সন্ধায় তার নমুনা পজিটিভ আসে।

বিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান মনির “সবুজ বাংলা নিউজ” কে বলেন.  করোনাভাইরাস নিয়ে পালানো ওই যুবককে ধরতে উপজেলার বিভিন্নস্থানে সারারাত অভিযান চালানো হয়েছে। এখন পর্যন্ত বিভিন্নস্থানে চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশি করা হচ্ছে।

বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. তৌহিদুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ওই যুবককে ধরতে তার বাবাকে নিয়ে তার আত্মীয়-স্বজনের বাসায় খোঁজ করেও পাওয়া যায়নি। তবে তাকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।