উত্তরাঞ্চলের ৫৯৫৯ পরিবারকে নগদ ১,৮৬,৬৮,০৮৬ টাকা প্রদান করল ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ

0
7

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনাকালিন পরিস্থিতিতে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা ওয়ার্ল্ড ভিশন উত্তরাঞ্চলে রাজশাহী ও রংপুর বিভাগে কর্মহীন, অতিদরিদ্র ৫৯৫৯ পরিবারে ১,৮৬,৬৮,০৮৬ টাকার অর্থ সহায়তা প্রদান করেছে। এর মাধ্যমে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ মোকাবেলায় সরকার ঘোষিত প্রায় দুমাসের অধিক সময় ধরে লকডাউনের কারণে সংকটে থাকা নিম্নআয়ের মানুষের পরিবারের তাৎক্ষনিক চাহিদা পূরণ করা সম্ভব হবে । সংস্থাটি সিটি করর্পোরেশন পর্যায়ে ২২৬ জন নির্বাচিত উপকারভোগীদের ৫০০০ টাকা এবং গ্রাম পর্যায়ে ৫৭৩৩ পরিবারকে ৩০০০ টাকা করে প্রদান করে।

রংপুর শহরের হুনুমানতলা বস্তির দরিদ্র পরিবারের গৃহিনী শিল্পী বেগম (৩৭) জানান, “পাঁচ সদস্যের পরিবারে একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যাক্তি আমার রিক্সাচালক স্বামী। সাধারণ ছুটির কারণে আমার স্বামীর রিক্সা চালানো বন্ধ ছিল। আমি ওয়ার্ল্ড ভিশনে কাছ থেকে ৫০০০ টাকা পেয়েছি যা দিয়ে আমি আমাদের বর্তমান যে খাদ্য সংকট চলছে তা কাটিয়ে উঠতে পারব”। একই ভাবে মিঠাপুকুরের নয়াপাড়ার রঞ্জিত, সন্দলপুরের বিলকিস ৩০০০ টাকা করে পান।

ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের নর্দান বাংলাদেশ রিজিওনাল ফিল্ড ডাইরেক্টর অঞ্জলি কস্তা বলেন ‘এই ধরনের সংকটে সময় পরিবারে নানান অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা তৈরি হয়। ফলে শিশুরা নানা ধরণের নির্যাতনের শিকার হয়। যেকারণে আমরা চেষ্টা করেছি, মানুষের খাদ্য ও অর্থনৈতিক নিরাপত্তার বিষয়টি; যেন এই আর্থিক সহায়তা ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলোকে করোনার প্রকোপ মোকাবেলায় সহায়তা করে’।

অঞ্জলি কস্তা আরো জানান, উপকারভোগী নির্বাচন থেকে অর্থ হস্তান্তরের পুরো প্রক্রিয়াটাই বিভিন্ন সফটওয়্যরের মাধ্যমে ডিজিটাল পদ্ধতিতে হয়ে থাকে। প্রথমে ব্যাংকে অর্থ প্রদানের আদেশ দেয় ওয়ার্ল্ড ভিশন, পরে সেই অর্থ মোবাইল ব্যাংকিং সেবা প্রদানকারীর কাছে চলে যায়। মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান সরাসরি উপকারভোগীর মোবাইল একাউন্টে টাকা পাঠায়ে দেয়। মাত্র ২/৩ দিনের মধ্যে নিরাপদে ও দক্ষতার সাথে পৌছে যাচ্ছে এই সেবা।

উত্তরাঞ্চলে ওয়ার্ল্ড ভিশন ২৬৭৮৩২ মাস্ক, ২০০৩ সেট পিপিই, ৪৫০৭৮ টি গ্লাভস, ১৩০০৮টি হ্যান্ড স্যানিটাইজার, ২৫১১ জন স্বাস্থ্যসেবী ও ৬৭৮০ পরিবারের মধ্যে বিতরণ করেছে। আমাদের সামনের সারির কর্মীরা কমিউিনিটির নেতাদের সাথে কাজ করার মাধ্যমে শিশু, পিতা-মাতা ও অভিভাবকের ভাইরাস সংক্রমন প্রতিরোধি বাতার্ দিয়ে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ সরকারে কোভিড-১৯ সংক্রমন প্রতিরোধের প্রচেষ্টার পরিপূরক হিসবে এ বছরের এপ্রিল মাসে ওয়ার্ল্ড ভিশন জাতীয় পযায়ে কোভিড-১৯ সাড়াদান কর্মসুচী গ্রহন করেছে যার লক্ষ্য হলো জনগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষার উপকরণ , সেবা ও তথ্য প্রদান করা। কাভিড-১৯ সাড়াদান কর্মসুচী দেশের ২৪ জেলায় ওয়ার্ল্ড ভিশন কর্ম এলাকায় কাজ বাস্তবায়ন করছে।

  • 383
    Shares