কাহারোলে পাটের বাম্পার ফলন ন্যায্য মূল্য না পাওযায় লোকসান গুনতে হচ্ছে কৃষকে

0
17

কাহারোল (দিনাজপুর) সংবাদদাতা : দিনাজপুরে কাহারোল উপজেলায় পাটের ন্যায্য দাম ও বিক্রি নিয়ে অতাশায় রয়েছেন কৃষকেরা। চলতি মৌসুমের শুরুতে আম্পান ও আগাম বর্ষায় নষ্ট হয়ে গেছে অনেক জমির পাট।

Loading
এছাড়া বর্তমানে সরকারি পাট গুলি বন্ধ থাকায় উৎপাদিত পাটের সঠিক মূল্য পাবে কি-না। তা নিয়ে চরম দুঃচিন্তায় রয়েছে উপজেলার পাট চাষিরা।
কাহারোল উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় চাষিরা কাচা পাট কাটতে ও পাট জাগ দিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন।কাহারোল উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে এই উপজেলায় ৩১৫ হেক্টর জমিতে পাট চাষ করা হয়েছে। ৩ হাজার ৫’শ ৯৭ বেল পাট উৎপাদন হবে বলে আশা প্রকাশ করছেন কৃষি বিভাগ। গতকাল মঙ্গলবার কাহারোল উপজেলার কাহারোল হাটে দেখা গেছে পাট চাষিরা বাজারে পাট বিক্রি করার জন্য নিয়ে এসেছে। প্রতিমণ পাট বিক্রি হচ্ছে ১৫’শ থেকে ১৬’শ টাকায়। নয়াবাদ গ্রামের পাট চাষি অতুল চন্দ্র রায় জানান, প্রতিকূল আবহাওয়ার জন্য এবার পাটের ফলন কম হয়েছে। তারপরেও অধিক মজুরী দিয়ে শ্রমিক নিয়ে জমি থেকে পাট কাটা, জাগ দেওয়া ও পাটের আশ ছাড়িয়ে সেই পাট বাজারে বিক্রি করতে গেছে দাম কম পাওয়া যাচ্ছে। গতবারের তুলনায় এবারে পাটের মূল্য কম হওযায় হতাশ হয়েছেন ঈশানপুর গ্রামের পাট চাষী রবীন্দ্রনাথ তিনি বলেন, প্রতি বিঘা জমিতে ১৫ হাজার টাকা করে খরচ হয়েছে। তাতে পাট উৎপাদন হয়েছে ১০ মণ হারে। এই পাট বিক্রি করে বর্তমান বাজার মূল্যে উৎপাদন খরচ উঠবে না। কাহারোল উপজেলা কৃষি অধিদপ্তরের কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ আবু জাফর মোঃ সাদেক জানান, চলতি মৌসুমে উপজেলায় ৩১৫ হেক্টর জমিতে পাট চাষ করা হয়েছে। অতিবৃষ্টি ও প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারণে  পাটের কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। তবে উৎপাদিত পাটের সঠিক বাজার মূল্যে পেলে পাট চাষিদের ক্ষতি পুষিয়ে যাবে বলে তিনি মনে করেন।

  • 33
    Shares