বীরগঞ্জে করোনার প্রভবে সবজির দাম অর্ধেকে নেমেছে

0
81

 

বিকাশ ঘোষ,  সবুজ বাংলা নিউজll

করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় দিনাজপুরের বীরগঞ্জে নিত্যপণ্যের বাজার কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। কাঁচা সবজিসহ অন্যান্য নিত্যপণ্য বিকেল ৫ টার মধ্যে দোকান খুলে বেচাকেনা সিমিত থাকলেও করোনার প্রভবে সবজির দাম অর্ধেকে নেমেছে। রোববার বীরগঞ্জ পৌরসভার দৈনিক বাজার, হাটখোলা, বলাকা মোড় বাজার ও উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারের পরিস্থিতি খোঁজ নিতে গেলে দোকানিরা এই তথ্য জানান,তবে সরকারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক দোকানপাট খুলে দেওয়ায় সকাল থেকেই ক্রেতাদের ভীড় ছিল বেশি। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ক্রেতারা সামাজিক দূরত্ব মানছে না। দোকানিরাও ভিড়ের কারণে ক্রেতাসাধারণদের কিছু বলতে পারছে না। এভাবেই চলছে কেনাকাটা। সবজি উৎপাদনের জেলা দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার হাট-বাজারগুলোতে সবজির দাম অর্ধেকে নেমে এসেছে। সরজমিনে দৈনিক বাজার গিয়ে জানা যায়,পচনশীল বিভিন্ন সবজি খুব কম মূল্যে বিক্রি হচ্ছে। বেগুন ১০থেকে ১৫ টাকা,ঢেঁরস ১০ থেকে ১৫ টাকা,করলা ১০থেকে ১৫ টাকা, টমেটো ৮ থেকে ১০ টাকা, মিস্টি লাউ ১৫ থেকে ২০ টাকা,কাঁচা মরিচ ১৫ থেকে ২০টাকা,পেঁয়াজ ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, শসা ১০ থেকে ১৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি। আলু বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ টাকার মধ্যে। অন্যান্য নিত্যপণ্যের মধ্যে চিনি,লবণ, ডাল,তেল, আটা,ময়দা, ছোলা, চালের দাম নতুন করে বাড়েনি। এদিকে ডিম ও মুরগির দাম কিছুটা কমেছে। তবে মাছ -মাংস আগের দামেই বিক্রি করতে দেখা গেছে। সকাল থেকে বীরগঞ্জ দৈনিক বাজারের মাসুদের ডিমের দোকানে প্রতিহালি ফার্মের মুগির ডিম ২৮ টাকা হালি দরে বিক্রি হয়েছে এবং পাকিস্তানি মুরগি বিক্রি হয়েছে প্রতিকেজি ১৮০ টাকায় এবং ব্রয়লার সাদা মুরগি বিক্রি হয়েছে ১১০ থেকে ১২০ টাকায়। তবে ক্রেতাসাধারণরা বলেছেন, নিয়মিত বাজার মনিটরিং করা প্রয়োজন।